ইমেইল মার্কেটিং কি ? কিভাবে ইমেইল মার্কেটিং করবেন

ইমেইল মার্কেটিং কি এবং ইমেইল মার্কেটিং কিভাবে কাজ কাজ করে এই বিষয়ে এই আর্টিকেলে আমরা কথা বলবো।

ইমেইল মার্কেটিং কি
ইমেইল মার্কেটিং করে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

আজকাল যেকোন ব্যবসার প্রচার বা প্রসারের জন্য অনলাইন মার্কেটিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অনলাইন মার্কেটিং এর মধ্যে বিভিন্ন বিষয় বা মার্কেটিং প্রক্রিয়া অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যেমন, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং (Social media marketing), ইউটিউব মার্কেটিং (Youtube marketing), ফেসবুক মার্কেটিং (Facebook marketing), ইমেইল মার্কেটিং (Email marketing) ইত্যাদি।

এই মার্কেটিং পদ্ধতি গুলো যেকোন অনলাইন বিজনেস (Online business) বা Physical business এর প্রসার এবং যেকোন ধরনের product বা পণ্যের প্রচার প্রচারণার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

তার মধ্যে ইমেইল মার্কেটিং অন্যতম একটি লাভজনক মার্কেটিং টেকনিক। ইমেইল মার্কেটিং কেন লাভজনক?

বর্তমানে লোকেরা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াগুলো যেমন ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব ইত্যাদি থাকা সত্ত্বেও ইমেইল ব্যবহার করছে। ডেটায় দেখা গেছে প্রতি বছর ইমেইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি এন্ড্রয়েড মোবাইল ব্যবহারকারী হন, তাহলে আপনি অবশ্যই এটি লক্ষ্য করবেন যে, মোবাইল প্রথম চালু করলেই ইমেইল এড্রেস এর প্রয়োজন হয়। ইমেইল ঠিকানা ছাড়া আপনি গুগল প্লে স্টোর থেকে কোন এপস ডাউনলোড ও ইনস্টল করতে পারবেন না।

তাহলে দেখুন, বর্তমানে এন্ড্রয়েড ব্যবহারকারীর সংখ্যা কত। সুতরাং মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে ইমেইল মার্কেটিং অবশ্যই লাভজনক হিসেবে প্রমাণিত হবে। ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনি সহজেই খুব সময়ে আপনার প্রোডাক্ট বা পণ্য একসাথে হাজার হাজার মানুষের নিকট পৌঁছে দিতে পারবেন। আর হাজার হাজার মানুষ তাদের ইমেইল এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে জানবেন এবং কেনার জন্য আকর্ষিত হবেন। তাহলে দেখুন, ইমেইল মার্কেটিং এর সুবিধা কেমন।

তাহলে চলুন জেনে নিই ইমেইল মার্কেটিং কি বা ইমেইল মার্কেটিং কাকে বলে, ইমেইল মার্কেটিং এর লাভ এবং কিভাবে ইমেইল মার্কেটিং করবেন? এই সব বিষয়ে আজকে আমি আপনাদের বুঝিয়ে দিব।

ইমেইল মার্কেটিং কি বা কাকে বলে?

ইমেইল মার্কেটিং কাকে বলে এই বিষয়ে জানার আগে আপনার জানা প্রয়োজন মার্কেটিং কি বা অনলাইন মার্কেটিং কি? 

আসলে মার্কেটিং মানে হলো অনলাইন বা ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে কোন প্রোডাক্ট বা পণের বিষয়ে মানুষকে জানিয়ে দেওয়া। অর্থাৎ নিজের ব্যবসার প্রচার বা প্রসারের জন্য অনলাইন ব্যহার করার প্রক্রিয়াকে মার্কেটিং বলা হয়।

মার্কেটিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কোন প্রোডাক্ট বিক্রি করার চেষ্টা করা হয়। আর এই কাজটি যখন ইমেইলের মাধ্যমে করা হয় তখন তাকে ইমেইল মার্কেটিং বলা হয়।

অর্থাৎ ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে ব্যবসার বা business এর প্রচার ইমেইলের মাধ্যমে করা হয়। সুতরাং ইমেইল মার্কেটিং কাকে বলে আশা করি এই বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা পেয়ে গেছেন।

ইমেইল মার্কেটিং এর সুবিধা

ইমেইল মার্কেটিং এর অবশ্যই কিছু সুবিধা রয়েছে। Advertising, social media marketing, video marketing ইত্যাদি প্রক্রিয়াগুলোর চেয়ে ইমেইল মার্কেটিং এর অবশ্যই একটু বেশি সুবিধা রয়েছে।

ইমেইল মার্কেটিং সেভাবেই করা হয় যেভাবে আমরা অন্য কাউকে ইমেইল পাঠিয়ে থাকি। অর্থাৎ আমরা একজনকে একটা ইমেইল লিখে পাঠিয়ে দিই। আর ইমেইল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে শুধু একটি ইমেইল সুন্দর করে লিখবেন, তারপর সেটি একসাথে অনেক জনকে পাঠিয়ে দিতে পারবেন। তাই অল্প পরিশ্রমে সহজেই মার্কেটিং প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা যাচ্ছে। এটি হলো ইমেইল মার্কেটিং এর সবচেয়ে বড় সুবিধা।

আর তাই বলা যায়, ইমেইল মার্কেটিং এর লাভ ও সুবিধা প্রচুর রয়েছে।

ইমেইল মার্কেটিং এর লাভ

ইমেইল মার্কেটিং এর লাভ অবশ্যই রয়েছে। তার মধ্যে কয়েকটি নিচে উল্লেখ করা হলো,

প্রথমত ইমেইল এর মাধ্যমে নিজের প্রোডাক্ট আপডেট এর বেপারে লোকজনকে জানিয়ে দেওয়া হয়। এতে তারা নতুন প্রোডাক্টের উপর আকর্ষিত হয়ে সেটা কিনে।

আর দ্বিতীয়ত হলো, ওয়েবসাইটে ভিজিটর বা ট্রাফিক অথবা ব্লগ রিডার বৃদ্ধির জন্য ইমেইল মার্কেটিং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

ইমেইলের মাধ্যমে ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বা ব্লগ রিডার বাড়ানোর পদ্ধতিটি হলো এরকম যে, আপনি যখন আপনার ব্লগে নতুন কনটেন্ট বা ব্লগ পোষ্ট লিখে পাবলিশ করবেন। তখন সেই আর্টিকেলটি আপনার সাবস্ক্রাইব করা রিডারদের ইমেইলে চলে যাবে এবং তারা সেটা খুলে কনটেন্টটি পড়তে পারে। তবে এটির জন্য আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগে একটি ইমেইল সাবস্ক্রাইব ফর্ম বা Email newsletter যুক্ত করতে হবে।

যখন কেউ সেই ফর্মে তার ইমেইল এড্রেস দিয়ে সাবস্ক্রাইব করবে তখনই আপনার ওয়েবসাইটের মেইল লিস্টে তার ইমেইল এড্রেস জমা হয়ে যাবে এবং পরবর্তীতে আপনার ব্লগের সকল আপডেট সম্পর্কে তাকে জানানো যাবে।

সুতরাং ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে একদিকে product update সম্পর্কে মানুষজনকে জানাতে পারবেন। অন্যদিকে ব্লগ রিডার বা ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বৃদ্ধি করতে পারবেন।

ইমেইল মার্কেটিং করার নিয়ম (স্টেপ বাই স্টেপ)

ইমেইল মার্কেটিং করার জন্য লোকের প্রয়োজন। অর্থাৎ অনেক লোকের কাছে ইমেইল পাঠাতে হবে। অনেক লোকের কাছে ইমেইল পাঠানোর জন্য আপনাকে একটি Email list তৈরি করতে হবে। অনেক বড় একটি ইমেইল লিস্টের প্রয়োজন হবে।

এখন কথা হলো, এত বড় একটি ইমেইল লিস্ট কিভাবে তৈরি করবেন?

চিন্তার কোন কারণ নেই। এ প্রশ্নের উত্তর আমি নিচে দিয়ে দিবো।

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার পরিচিত মানুষদের ইমেইল এড্রেস সংগ্রহ করতে পারেন এবং তাদের অনুরোধ করতে পারেন।

ফেসবুক বিজ্ঞাপন সহ ইমেল সংগ্রহ করুন

ইমেল মার্কেটিং এর ইমেইল সংগ্রহের জন্য ব্যবহৃত জনপ্রিয় অন্যতম হলো ফেসবুক বিজ্ঞাপন।

কারণগুলি হলো:

ফেসবুক বিজ্ঞাপন তুলনামূলকভাবে কম ব্যয়বহুল

আপনি দ্রুত ফলাফল পাবেন।

আপনি সহজেই আপনার লক্ষ্যযুক্ত গ্রাহকদের কাছে পৌঁছাতে পারেন

ফেসবুক বিজ্ঞাপন ব্যবহার করে, অনেক ব্যবসায় ইমেলগুলি সংগ্রহ করে এবং তাদের ইমেল বিপণন প্রচারের মাধ্যমে ভাল উপার্জন অর্জন করে।

ফেসবুক বিজ্ঞাপনগুলি ছোট ব্যবসায়ের জন্য একটি প্রচুর সংখ্যক গ্রাহকের কাছে নিয়ে যায়।

আপনি এই কৌশলগুলি ব্যবহার করে ইমেেইল সংগ্রহ করতে পারেন: (আমরা ধরে নিই যে আপনার একটি সক্রিয় ফেসবুক সংস্থা পৃষ্ঠা রয়েছে)

গবেষণা নিবন্ধ, ই-বুক ইত্যাদি তৈরি করুন।   এমন একটি ফেসবুক বিজ্ঞাপন তৈরি করুন যা অবতরণ পৃষ্ঠার সাথে লিঙ্ক করে যা আপনার গ্রাহকদের তাদের ইমেল ঠিকানা সরবরাহ করতে বলে। আপনি একবার এই ইমেলগুলি পেয়ে গেলে সেগুলি তাদের সামগ্রীগুলি আপনার পণ্য / পরিষেবাদির সাথে সংযুক্ত করে প্রেরণ করে।   উদাহরণস্বরূপ, আপনি যে কোনও বিষয়ে গভীরতর গবেষণা এবং কৌশলগুলি দিয়ে সজ্জিত একটি ই-বুক লিখতে পারেন (পছন্দমত আপনার গ্রাহকের সমস্যা সমাধান করুন), একটি যোগাযোগ ফর্ম তৈরি করতে পারেন এবং আপনার ফেসবুক বিজ্ঞাপনের সাথে এই লিঙ্কটি সংযুক্ত করতে পারেন (এতে আপনার সাম্প্রতিক ই-বুকের বিবরণ উল্লেখ রয়েছে) কিছু বিষয়ে।

যদি কেউ আপনার ই-বুকটি পড়তে এবং আপনার বিজ্ঞাপনে ক্লিক করতে চায় তবে তাদের ইমেল ঠিকানা সরবরাহ করা দরকার যা আপনি তাদের আপনার ই-বুক প্রেরণ করতে পারেন।

ফেসবুক বিজ্ঞাপনগুলির সাহায্যে আপনি ইমেল বিপণন প্রচারের জন্য ইমেলগুলি সহজেই খুঁজে পেতে পারেন।

আর আপনার যদি একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ থাকে তাহলে সহজেই লোকদের ইমেইল ঠিকানা সংগ্রহ করতে পারবেন।

ব্লগে একটি Email newsletter subscription বাটন যুক্ত করতে হবে এবং তাদের ইমেইল সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করতে হবে।

এই ইমেইল নিউজলেটার সহজেই আপনি ব্লগে যুক্ত করে নিতে পারবেন, যদি আপনি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে থাকেন।

এজন্য আপনাকে wp subscribe প্লাগিনটি ইনস্টল করতে হবে।

এভাবে যখন আপনার একটি অনেক বঢড় ইমেইল লিস্ট তৈরি হয়ে যাবে তখন আপনি আপনার ইমেইল মার্কেটিং প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবেন।

Email marketing এর জন্য কি কি প্রয়োজন?

আমি আগেই বলেছি আপনার একটি বড় ইমেইল লিষ্ট অবশ্যই প্রয়োজন হবে। তার সাথে আপনার একটি Business email address প্রয়োজন হবে। Business email address কে ডোমেইন ইমেইল ও বলা হয়ে থাকে।

এই ডোমেইন ইমেইল এড্রেস হলো এরকম যে, [email protected]

এরকম একটি ইমেইল ঠিকানা আপনাকে প্রথমে তৈরি করে নিতে হবে। এর জন্য প্রথমে আপনাকে একটি ডোমেইন কিনে নিতে হবে। অথবা আপনার অলরেডি যদি একটি ওয়েবসাইট থেকে থাকে এবং ডোমেইন কেনা থাকে তাহলে এরকম ইমেইল এড্রেস আপনি তৈরি করে নিতে পারেন।

এর কারণ হলো, মার্কেটিং এর জন্য আপনি জিমেইল কিংবা ইয়াহু ইমেইল পরিসেবা ব্যবহার করতে পারবেন না।

কারণ, এক্ষেত্রে যেহেতু একসাথে অনেক লোকের কাছে ইমেইল পাঠাতে হয়, তাই এই ইমেইল পরিসেবা গুলো ব্যবহার করলে আপনার ইমেইল আইডি ব্লক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

কিভাবে ইমেইল মার্কেটিং করবেন?

ইমেইল মার্কেটিং এর জন্য অনেক ফ্রি এবং পেইড সফটওয়্যার রয়েছে। ইন্টারনেটে অনেক ইমেইল মার্কেটিং টুলস রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করে ফ্রিতে এবং পেইড ইমেইল মার্কেটিং করা সম্ভব।

এরকম কয়েকটি ইমেইল মার্কেটিং টুল (email marketing tools) হলো

  • MailChimp
  • Feedburner
  • SendPress

এই টুলসগুলো ফ্রি এবং সেরা। তো বন্ধুরা, ইমেইল মার্কেটিং কি? ইমেইল মার্কেটিং করে কি লাভ হবে? এ সবকিছু এখন আপনারা ভালোভাবে বুঝে গেছেন।

আপনাকে যা কযতে হবে তা হলো,

  • কিছু ফ্রি ইমেইল মার্কেটিং টুলসগুলোতে রেজিস্ট্রার বা সাইন আপ করতে হবে।
  • একটি ইমেইল লিষ্ট তৈরি করতে হবে।
  • তারপর টুলসগুলো ব্যবহার করে একসাথে অনেক মানুষের কাছে প্রোডাক্টের কিংবা বিজনেস এর ইমেইল পাঠিয়ে দিতে হবে।
  • আর একটি বিজনেস ইমেইল এড্রেস অবশ্যই তৈরি করে নিতে হবে যেমনটা আমি আগে বললাম।
  • আপনি যে ইমেইলটি লিখে অনেকজনের কাছে পাঠাবেন সেটি অবশ্যই ভালোভাবে লিখতে হবে। আপনার প্রোডাক্টের বিষয়ে ভালো করে বুঝিয়ে দিতে হবে। যাতে লোকজন সেই ইমেইল এর প্রতি আকর্ষিত হয়। মেইলের টাইটেল আকর্ষণীয় হতে হবে।
  • আর তা নাহলে মানুষ আপনার মেইলটি খুলবে কি খুলবে না তার কোন সম্ভাবনা নেই। অর্থাৎ গ্রহকদের সাথে আপনার সবসময় ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।
  • এটা অনেকটা অপরিচিত মানুষের বাড়িতে গিয়ে রাতের খাবার খাওয়ার মতো ঘটনা। তাই আপনার ইমেইল টি লেখার সময় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

ইমেইল মার্কেটিং করে আয়

আপনি চাইলে ইমেইল মার্কেটিং থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে ইমেইল মার্কেটিং থেকে টাকা আয় করা সম্ভব।

এফিলিয়েট মার্কেটিং হলো প্রথমে আপনাকে এফিলিয়েট প্রোগ্রামগুলোতে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। যেমন, Amazon affiliate program.

তারপর তাদের পণ্যের এফিলিয়েট লিংক সংগ্রহ করতে হবে।

তারপর সেই এফিলিয়েট লিংক ইমেইল এর মাধ্যমে মানুষের কাছে পাঠাতে হবে। তারপর কেউ যদি সেই লিংকের মাধ্যমে সেই পণ কিনে। তালে তার জন্য আপনি কমিশন পাবেন।

আমার শেষ কথা

আশা করি এই ইমেইল মার্কেটিং টিউটোরিয়ালটি আপনার ভালো লেগেছে। যদি এ বিষয়ে কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে নিচে অবশ্যই কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। ধন্যবাদ।

Leave a Comment